২৮ সেপ্টেম্বর অপয়া ভারতের জন্য

ষষ্ঠবারের মত এশীয় চ্যাম্পিয়ন হতে আজ বাংলাদেশের মুখোমুখি ভারত। পরিসংখ্যান কিংবা মাঠের পারফর্ম সব কিছুতে কাগজে কলমে এগিয়ে রোহিত শর্মার দল। কিন্তু এক দিক থেকে পিছিয়ে তারা। ২৮ সেপ্টেম্বর তারিখটি যে অপয়া তাদের জন্য।

ক্রিকেট ইতিহাসে ঘেঁটে দেখা গেছে, ২৮ সেপ্টেম্বর কেবলই হার জুটেছে ভারতের। একটি ম্যাচেই কেবল তারা হারেনি, যেটা বৃষ্টির কারণ পরিত্যাক্ত হয়েছিল।

এমনকি যে সিরিজে ভারত দাপটের সঙ্গে জিতেছে, সেই সিরিজেও একটি মাত্র হার এসেছে এই ২৮ সেপ্টেম্বর।

আসুন জেনে নেই সেসব কাহিনি। ১৯৮৪ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর। ভেন্যু ভারতেরই দিল্লি। প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া। স্বাগতিকদের দুর্দান্ত বোলিংয়ে সফরকারীরা আটকে গেল ২২০ রানে। জয় দেখছিল ভারত। কিন্তু ১৭২ রানের বেশি তুলতে পারেনি স্বাগতিকরা। ৪৮ রানে হারের হতাশা নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয়।

পরের ধাক্কা ১৯৯৭ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর। এবার প্রতিপক্ষ চির প্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তান। এবারও ঘরের মাঠে ম্যাচে এগিয়ে থাকার কথাই ছিল ভারতের। কিন্তু ১৩ বছর আগের হারেরই পুনরাবৃত্তি হয়।

হায়দ্রাবাদে সেই ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ১৭০ রানেই থেমে যায় ভারতের রানের চাকা। আর জয় ‍তুলে নিতে তেমন কষ্ট হয়নি পাকিস্তানের। পাঁচ উইকেট হারিয়ে বিজয়ীর হাসিতে মাঠ ছাড়ে সফরকারীরা।

সবশেষ ২০১৭ সালের ২৮ সেপ্টেম্বরও হতাশ হতে হয় ভারতকে। পাঁচ ম্যাচ সিরিজে অস্ট্রেলিয়া যখন দাঁড়াতেই পারছে না, প্রথম তিন ম্যাচ হেরে হোয়াইটওয়াশের লজ্জার সামনে, তখন এই ২৮ তারিখেই ঘুরে দাঁড়ায় তারা। সিরিজে প্রথমবারের মতো জ্বলে উঠে অজি ব্যাটসম্যানরা করেন ৩৩৪ রান। আর পরে ব্যাট করতে নেমে ৩১৩ রানে অলআউট হয় ভারত। ফলাফল ২১ রানের হার।

বলা বাহুল্য সিরিজে ওই একটি ম্যাচই হারতে হয়েছিল স্বাগতিক ভারতকে। ৪-১ ব্যবধানে জয় পায় তারা।

২০০৯ সালের ২৮ সেপ্টেম্বরও হতাশা সঙ্গী ছিল ভারতের। তবে সান্তনা অন্তত তারা খুঁজতে পারে, হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়নি। আইসিসির চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে এই দিনে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হয়েছিল তারা। কিন্তু সেদিনও বৃষ্টির কারণে ম্যাচটি পরিত্যক্ত হয়।

এই ২৮ সেপ্টেম্বরই আজ দুবাই ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে এশিয়া কাপের ফাইনালে বাংলাদেশের মুখোমুখি ভারত। টাইগাররা আবার চোট আক্রান্ত। তবে আহত বাঘ নাকি আবার ভয়ঙ্কর। আর ওপর ২৮ সেপ্টেম্বরের স্মৃতি যদি তাড়িয়ে বেড়ায় তাহলে?