এশিয়া কাপে আশরাফুলকে দলে চাচ্ছে সবাই

অাশরাফুল বাংলাদেশ ক্রিকেটের প্রথম তারকার চেয়েও বেশি কিছু। বর্তমানে বাংলাদেশ যে কোনো দেশের বিপক্ষেই বেশ শক্ত প্রতিপক্ষ। জয়ের জন্যই এখন মাঠে নামে বাংলাদেশ। লাল-সবুজের দলকে এই জয়ের অভিজ্ঞতা পাইয়ে দিতে আশরাফুলের ব্যাটের কিন্তু বড় অবদান। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশকে ‘জায়েন্ট কিলার’ হিসেবে উপস্থাপন করেছিলেন এই আশরাফুলই।

ম্যাচজয়ী একেকটা ইনিংস সাবেক এই অধিনায়ককে জনপ্রিয়তার কতোটা শীর্ষে তুলেছিল সেটা আন্দাজ করা গেছে তার বিরুদ্ধে পাঁচ বছরের নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর। সেই জনপ্রিয়তা আকুল হয়ে ডাকছে এখন আশরাফুলকে!

স্পট ফিক্সিংয়ের যে কালো দাগ লাগিয়েছিলেন শরীরে তা ঝেড়ে মুছে এখন পরিষ্কার। নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ফিরে ঘরোয়া ক্রিকেটে রানও পেয়েছেন। কদিন আগে আশরাফুলের আশ্চর্য্য রকমের ফিটনেস উন্নতির খবরও জানা গেল। এদিকে, সম্প্রতি বাংলাদেশের ব্যাটিং ইউনিট বাজে একটা সময় পার করছে। বিশেষ করে তরুণরা একেবারেই ব্যর্থ। চলতি এশিয়া কাপেও একই হাল। তামিম ইকবাল কব্জির ইনজুরির কারণে এশিয়া কাপ খেলতে পারবেন না।

তামিমকে ছাড়া খেলতে নেমে সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ব্যর্থ হলে পুরো মুখ থুবড়ে পড়ার হাল বাংলাদেশের। সিনিয়রদের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলার কাজটাও করতে পারছেন না দলের তরুণরা। এই যখন অবস্থা তখন আশরাফুলকে দলে ফিরিয়ে আনার দাবি দিন দিন রীতিমতো ‘বিক্ষোভে’ রূপান্তরিত হচ্ছে! নিষিদ্ধ থাকা অবস্থাতেই আশরাফুলকে ফিরিয়ে আনার দাবি জানাচ্ছিলেন অনেকে। এবার নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার সময়টাতে যখন তরুণরাও ভালো খেলছেন না তখন আশরাফুলকে ফেরানোর দাবি আরো জোরালো হয়েছে।

নির্বাচকরা জানিয়েছেন, আশরাফুল তাদের ভাবনায় ভালো করেই আছেন। কদিন আগে তার প্রমাণও মিলল। বিসিবির এইচপি দলের আণ্ডারে একটি চার দিনের ম্যাচে দলে আশরাফুলকে রাখা হয়েছে। আশরাফুল বলেছিলেন, পুরনো ধারে মরচে পড়লেও এই ম্যাচে তা উঠিয়ে দেওয়ার প্রমাণ রাখতে চান তিনি। যাতে নির্বাচকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করা যায়। কিন্তু আশরাফুলকে এখনই দলে জায়গা দেওয়ার দাবিতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ঝড় শুরু হয়ে গেছে। গতকাল দেখা মিলল তার একটা ভালো উদাহরণ।

তামিম ইকবালকে ছাড়া ইনিংসের শুরু করতে নেমে পরপর দুই ম্যাচেই সুবিধা করতে পারেননি বাংলাদেশের দুই তরুণ ওপেনার লিটন কুমার দাস ও নাজমুল হোসেন শান্ত। এই ব্যর্থতার কারণে কাল হুট করেই সৌম্য সরকার ও ইমরুল কায়েসকে এশিয়া কাপের দলে অন্তর্ভূক্ত করা হয়। এই সংক্রান্ত সংবাদটি টোয়েন্টিফোর লাইভ নিউজপেপারের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে পোস্ট দিলে কমেন্টের ঝড় উঠে যায়। যাদের মধ্যে বেশিরভাগই আশরাফুলকে দলে ফিরিয়ে আনার দাবি জানান।

অনেকের দাবি, দলের এই অবস্থায় অভিজ্ঞ ওপেনার ইমরুল কায়েস দলে জায়গা পেতে পারেন। তবে সৌম্য সরকারের বদলে আশরাফুলকে দলে অন্তর্ভূক্ত করার দাবি তাদের। মিডল অর্ডারে বাংলাদেশের ভরসা হতে পারেন আশরাফুল, বলেছেন অনেকে। আশরাফুলকে আরও আগে দলে নেওয়া দরকার ছিল বলেও মন্তব্য করেন অনেকে। আশরাফুলের পাশাপাশি কেউ কেউ আবার শাহরিয়ার নাফীসকেও দলে ফেরানোর দাবি জানিয়েছেন।